স্ক্যালপেল-৫

আচ্ছা, ঈশ্বরে বিশ্বাস আর অবিশ্বাসের মধ্যে দূরত্বটা ঠিক কত খানি? কখন একজন মানুষ নাস্তিক হয়ে পড়েন? আমি হয়ত ভুল, কিন্তু কয়েকজন কম্যুনিস্ট ছাড়া আমার নিজের চারপাশে যেসব মানুষদের দেখেছি ভগবানে […]

স্ক্যালপেল-৬ / স্তন নিয়ে দু চার কথা

২০১২ সাল, আমি তখন আর.জি.করে সেকেন্ড ইয়ারের ট্রেনি। একদিন আমার ইনটার্ন ভাই বিক্রমের কাছে শুনলাম ওর মা কে নাকি ভর্তি করতে হয়েছে চেস্ট মেডিসিনের ওয়ার্ডে। দেখতে যেতে হবে। ফুসফুসের চারিদিকে […]

মানিকের পাঁচালী ~ পর্ব ৩ ~ ও মন্ত্রীমশাই

৮ মাস। ব্যবধান টা সত্যিই বেশ অনেকদিনের। কিন্তু আজ সকাল থেকেই ইউনিটের সবার উৎসাহ দেখে মনেই হচ্ছে না যে মাঝে এতো বড় ছেদ পড়েছিল। সবচেয়ে বেশি এনার্জি তো সদা তারুণ্যে ভরপুর চুনিবালা দেবীর। বয়সটা কে স্রেফ একটা সংখ্যা বানিয়ে ছেড়ে দিয়েছেন, কে বলবে ওনাকে দেখে পঁচাত্তর!

লেখক ~ অরিজিৎ গাঙ্গুলি
প্রচ্ছদ ~ সৌমিক পাল
#AnariMinds

মানিকের পাঁচালী ~ পর্ব ২ ~ দেখোরে নয়ন মেলে

প্রথমেই অপু দুর্গার কাশফুলের ক্ষেতে শুটিং। কলকাতা থেকে সত্তর কিলোমিটার দূরে পালসিট বলে একটা জায়গায় শুটিং স্পট। গ্রামের শান্ত স্থির পরিবেশ, কাশফুলের ওপর দিয়ে হাওয়া বয়ে চলার শব্দ, টেলিগ্রাফ পোস্টের হালকা আওয়াজ। আর এই দৃশ্যপট কেই চিরে একটা ট্রেন ঢুকছে ধোঁয়া ছাড়তে ছাড়তে। সেই দৃশ্য অপু দুর্গার চোখে জন্ম দিচ্ছে এক প্রবল বিস্ময় আর আনন্দের। এমনটাই ভাবনা মানিকের।

লেখক ~ অরিজিৎ গাঙ্গুলি
#AnariMinds #ThinkRoastEat

মানিকের পাঁচালী ~ পর্ব ১ ~ আর বিলম্ব নয়

রাইটার্স বিল্ডিং এর ভেতরে এই ঘরেই অপেক্ষা করার নির্দেশ দিয়ে গেছেন একজন কর্মচারী। ডাক পড়লেই ঢুকতে হবে সামনের কেবিনে। তবে মানিক কিন্তু নার্ভাস নয়, বরং আজ ওর মনে পড়ে যাচ্ছে এতদিনকার লড়াইয়ের মুহূর্ত গুলো। স্ক্রিপ্টের কাগজ একটা আছে সঙ্গে, কিন্তু ডঃ বিধানচন্দ্র রায় কে গল্প টা শোনাতে সেটার দরকার পড়বে না।

লেখক ~ অরিজিৎ গাঙ্গুলি
#AnariMinds #ThinkRoastEat

হায়রোগ্লিফের দেশে- ১১/ ঈশ্বরের লিপির রহস্য (দ্বিতীয় পর্ব)

এক নম্বর, হায়রোগ্লিফে কোন অ্যালফাবেট নেই, মানে এ বি সি ডি বা অ আ ক খ বলে ওদের কিছু ছিল না। এই প্রত্যেকটা চিহ্ন আসলে এক একটা উচ্চারণকে বোঝায়। মানে এগুলো ফোনেটিক। যেমন প্যাঁচাটা হল ‘ম’ উচ্চারণের জন্য, যেমন টা হয় আম, মা এই শব্দ গুলোতে। বাংলার ম বা ইংরাজীর এম অক্ষরের জন্য নয়।

লেখক- অনির্বাণ ঘোষ

হায়রোগ্লিফের দেশে-১০ / ঈশ্বরের লিপির রহস্য ( প্রথম পর্ব)

জঁ ফ্রাঁসোয়া শাম্পোলিয়নের জন্ম হয়েছিল ১৭৯০ সালে, ফ্রান্সের ছোট্ট শহর ফিজেকে, বেশ গরীবের ঘরে। ওর বাবা ঘুরে ঘুরে বই বিক্রি করতেন। দশ বছর বয়স থেকে ও ওর দাদার কাছে গ্রেনোবেল শহরে থাকতে শুরু করে। ছোটবেলা থেকেই ভীষণ গোঁয়ার ছিলেন এই শাম্পোলিয়ন। অঙ্ক, বিজ্ঞান ওর ভাল লাগত না। কিন্তু নতুন নতুন ভাষা শেখার ব্যাপারে ছিল প্রচন্ড আগ্রহ। মাত্র ১১ বছর বয়সেই ও ল্যাতিন, গ্রীক, আরবিক, হিব্রু আর সিরিয়াক ভাষায় লিখতে পড়তে পারতেন ইনি। গ্রেনোবেল শহরেই ওঁর হাতে আসে একটা ছোট প্যাপিরাসের টুকরো। নতুন দেখা একটা লিপির মানে বোঝার জন্য এবারে উঠে পড়ে লাগে শাম্পোলিয়ন। সেই শুরু, এর পরে প্রায় গোটা জীবনটাই কেটে যায় হায়রোগ্লিফের মানে উদ্ধারের নেশায়।

@অনির্বাণ ঘোষ

হায়রোগ্লিফের দেশে- ৯ / রোসেটার পাথর

আপনি হায়রোগ্লিফ পড়তে পারেন?

– হুঁ, খুব সামান্য। হায়রোগ্লিফ পড়া কি অত সহজ হে পিজি ভাই। এর রহস্য উদ্ধার করার জন্য কত মানুষ কত রাত জেগেছে জানো?

– হ্যাঁ, শুনেছিলাম খুব কঠিন ভাষা নাকি এটা।

– হ্যাঁ, সত্যি খুব কঠিন। সে কথায় পরে আসছি। আগে যে লোকটার জন্য শুধু হায়রোগ্লিফ না, গোটা মিশর দেশটাকেই পৃথিবীর মানুষ চিনল তার কথা বলি। কয়েকটা হিন্টস দি তোমাদেরকে, দেখি পার কি না,

লোকটার হাইট ৫ফুট ৭ ইঞ্চি, যুদ্ধবাজ, প্রায় গোটা ইউরোপ দখল করে ফেলেছিলেন, কিন্তু বিড়ালকে ভয় পেতেন, সত্যজিত রায় যে লিজঁ দি অঁর পেয়েছিলেন সেটা ইনি চালু করেছিলেন।

লেখক- অনির্বাণ ঘোষ

শুক_বলে_ওগো_”শাড়ি”

না না, এটাই এই শাড়ির ইউ এস পি। এর যে আঁচল টা দেখছেন সেটা জামদানী ধাঁচের, আর পাড় টা পিওর বেনারসি, বডি পুরো হাইব্রিড।

লেখক ~ অরিজিৎ গাঙ্গুলি
#AnariMinds #ThinkRoastEat