পাণ্ডুলিপি

– টেবলটা ওইদিকে। বইমেলায় রিলিজ করতে হলে আর দেরী করলে চলে নাকি মশাই!
– মুন্সীবাবু, এইবারটা থাক। বই করার দরকার নেই।
– অ্যাঁ! বই থাক! কী বললেন?
– আজ্ঞে, আপনার শ্রবণশক্তি লাজবাব।

লেখক ~ সপ্তর্ষি বোস
#AnariMinds

প্রবাসী বাঙালির রোজনামচা

লোকজনকে গালি দেওয়া হেব্বি সহজ জানেন তো দাদা, খালি নিজের ওপরে যে যখন পড়ে, তখনই ফেটে চৌচির হয় আর কি….তো এরকমই ফাটা চৌচির দিল কে টুকরো সে নিকলা চান্দ্ আলফাজ…

লেখক ~ ছন্দক চক্রবর্তী
#AnariMinds

ভূমি

এলাকার প্রজন্মের পর প্রজন্মের শিশুকিশোরদের বুড়ির পেছন পেছন ছড়া কাটতে কাটতে যাওয়ার মতো ফ্রিএর বিনোদন আর নেই বললেই চলে। আস্ত শরীরটা কিছুক্ষণ উত্তক্ত করলেই দেখতে পাওয়া যায়। কুঁচকে, চিমড়ে যাওয়া হাড্ডিসার দেহের মধ্যে আঁটোসাটো বুকজোড়া বেমানানরকমের পুষ্ট।

লেখিকা ~ শিল্পী দত্ত
#AnariMinds

ছোট্ট একটা শহর মাত্র

সে শহরে গরমকালের দুপুরে দিব্য হত লোডশেডিং। আর হাতপাখাতে ঘাম শুকিয়ে নিয়ে মা বসে যেত বেল ছাড়াতে। নিত্যিপুজোর বামুনঠাকুর ইন্দ্রদা আসত রঘুনাথকে সেই শরবত খাওয়াতে। আর ভোগের বাকিটা ছোট্ট ছেলের ইয়াব্বড়ো স্টিলের ঘটিতে।

লেখা ~ সপ্তর্ষি বোস
#AnariMinds

পাঠকের চোখে – তেইশ ঘন্টা ষাট মিনিট

আচ্ছা, কেমন হত যদি দৈনন্দিনের জরুরী প্রয়োজনগুলো মেটানোর জন্যে আমাদের খেলতে হত একটা করে খেলা আর সেই খেলার হারজিতের ওপর নির্ভর করত আমাদের চাওয়া কিন্তু না পাওয়া সব জিনিসগুলো।

লেখক ~ সপ্তর্ষি বোস
#AnariMinds #ThinkRoastEat

সিনে দর্পণ – ওকজা

গল্পটা সেই পুরনো পোষ্য আর পালকের প্রেমের! সেই মার্কিন ভোগবাদের বিপরীতে এক আবেগসর্বস্ব লড়াইয়ের! কিছু মানুষের একটা আদর্শ রক্ষার জন্য জীবন বাজী রাখার গল্প! 

লেখক ~ দেবায়ন কোলে
#AnariMinds #ThinkRoastEat

লেডি ডায়না এদিকে আয়না

এছাড়া রয়েছে পেন্সিল বক্সে মাপ করে কাটা খবরের কাগজ। যেটা তুললেই স্কেচপেন দিয়ে লেখা – A A A A… পাশে আটকানো লাভ সাইন বা নিষিদ্ধ হার্ট স্টিকার। বোধহয় হিম্যান,স্কেলেটর,গাড়ি,বাইক,শচীন,কপিল,মারাদোনারস্টিকারেরপাতারসাথেলুকিয়েস্মাগল্ডহয়েছে।রেডিয়ামচাঁদতারাওরয়েছে।পেন্সিলবক্সেলুকনোএকঅতিক্ষুদ্রসিলাবস্টোরি।অমৃতাউইলিয়ামস্।

লেখক ~ দেবপ্রিয় মুখার্জী (গুলগুলভাজা)
#Anariminds #ThinkRoastEat

রঙ্গোলি

ভবেশ এসে মারে ওকে রোজ। শালা চুল্লুখোর বুঢ্ঢা। মারতে মারতে গালি দেয় হারামিটা। কান পেতে শোনে শ্রীধর। মিতার কান্নার আওয়াজ। গোঙানির আওয়াজ। ইচ্ছা করে এ পাঁচফুটিয়া দিওয়ার ভেঙে ওপারে যায় ও। পরদিন সকালে আবার যখন দেখে মিতাকে, গুল দিচ্ছে চুপচাপ, মনের ইচ্ছাটা দবাতে হয় ওকে। এত্ত মার খায়..লেকিন অওরত জাতভি কেয়া অজীব জাত হ্যায়।

লেখিকা~ পিয়া সরকার
#AnariMinds #ThinkRoastEat

ইগের অভিশাপ

অন্ধকারের মধ্যে একটু ভাল করে দেখতে হয়, একটা মানুষের অবয়বের মতো কিছু যেন পড়ে রয়েছে সেই বেদির উপর। অবয়বটা একবার নড়ে চড়ে উঠলো যেন। মৃদু শিসের শব্দটা এবার একটু জোড়ালো হয়েছে। মিঃ রোজারের হৃদ- স্পন্দন দ্রুত হয়ে গেছে তা তিনি আঁচ করতে পারছেন। এবার তিনি স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছেন জানোয়ারটাকে। দূর থেকে দেখলে প্রথমে মানুষ ভেবে ভুল করতে হয়। কিন্তু একটু লক্ষ্য করলে বোঝা যায়, কোমরের উপরিভাগ মানুষের মতো হলেও কোমরের নীচে পা নেই। তার জায়গায় এক মস্ত বড় আঁশযুক্ত লেজ রয়েছে। যা হিলহিলিয়ে জলের উপর মৃদু তরঙ্গ সৃষ্টি করছে জানোয়ারটা।

লেখক ~ সুদীপ্ত নস্কর
#AnariMinds #ThinkRoastEat