হায়রোগ্লিফের দেশে- ১১/ ঈশ্বরের লিপির রহস্য (দ্বিতীয় পর্ব)

এক নম্বর, হায়রোগ্লিফে কোন অ্যালফাবেট নেই, মানে এ বি সি ডি বা অ আ ক খ বলে ওদের কিছু ছিল না। এই প্রত্যেকটা চিহ্ন আসলে এক একটা উচ্চারণকে বোঝায়। মানে এগুলো ফোনেটিক। যেমন প্যাঁচাটা হল ‘ম’ উচ্চারণের জন্য, যেমন টা হয় আম, মা এই শব্দ গুলোতে। বাংলার ম বা ইংরাজীর এম অক্ষরের জন্য নয়।

লেখক- অনির্বাণ ঘোষ

হায়রোগ্লিফের দেশে-১০ / ঈশ্বরের লিপির রহস্য ( প্রথম পর্ব)

জঁ ফ্রাঁসোয়া শাম্পোলিয়নের জন্ম হয়েছিল ১৭৯০ সালে, ফ্রান্সের ছোট্ট শহর ফিজেকে, বেশ গরীবের ঘরে। ওর বাবা ঘুরে ঘুরে বই বিক্রি করতেন। দশ বছর বয়স থেকে ও ওর দাদার কাছে গ্রেনোবেল শহরে থাকতে শুরু করে। ছোটবেলা থেকেই ভীষণ গোঁয়ার ছিলেন এই শাম্পোলিয়ন। অঙ্ক, বিজ্ঞান ওর ভাল লাগত না। কিন্তু নতুন নতুন ভাষা শেখার ব্যাপারে ছিল প্রচন্ড আগ্রহ। মাত্র ১১ বছর বয়সেই ও ল্যাতিন, গ্রীক, আরবিক, হিব্রু আর সিরিয়াক ভাষায় লিখতে পড়তে পারতেন ইনি। গ্রেনোবেল শহরেই ওঁর হাতে আসে একটা ছোট প্যাপিরাসের টুকরো। নতুন দেখা একটা লিপির মানে বোঝার জন্য এবারে উঠে পড়ে লাগে শাম্পোলিয়ন। সেই শুরু, এর পরে প্রায় গোটা জীবনটাই কেটে যায় হায়রোগ্লিফের মানে উদ্ধারের নেশায়।

@অনির্বাণ ঘোষ

হায়রোগ্লিফের দেশে- ৮ / খুফুর নৌকা

২৪শে এপ্রিল, ১৯৫৪, গিজার মরুভূমির দক্ষিণে কাজ করছিলেন আর্কিওলজিস্ট মহম্মদ জাকি আর ওঁর অ্যাসিস্ট্যান্ট গারাস ইয়ানি । অবশ্য জাকির কাজকে আর্কিওলজি না বলে ময়লা পরিষ্কার করা বলা যেতে পারে। সৌদি আরবের রাজা আবদেল আজিজ নাকি গিজার পিরামিড দেখতে আসবেন। তাই পিরামিডের আশেপাশের চলতে থাকা এক্সক্যাভেশনের কাজের জন্য তৈরি হওয়া আবর্জনা সরাবার দায়িত্বে ছিলেন ওরা। কিন্তু এই সব ছাইপাঁশ ঘাঁটতে ঘাঁটতেই ওদের হাতে চলে এল একটা অমূল্য রতন!

লেখক- অনির্বাণ ঘোষ

হিস্ট্রির_মিস্ট্রি- ১১ / যে মানুষের হাতদুটো ছিল ঈশ্বরের তৈরি- ৪

– মাফ করবেন হোলি ফাদার, কিন্তু আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি, আপনার কি মতিভ্রম হয়েছে?

– কেন বলুন তো?

– আপনি এই কাজটা দেবেন মিকেলকে?

– হ্যাঁ কেন? এই সিলিং তো ওরই আঁকা, দেওয়ালেও আঁকতে ক্ষতিটা কি?

– সে পঁচিশ বছর আগের কথা, গত পঁচিশ বছরে কি কি হয়ে গেছে জানেন?

লেখক- অনির্বাণ ঘোষ

হিস্ট্রির_মিস্ট্রি- ৮ / যে মানুষের হাতদুটো ছিল ভগবানের- ১

বাক্স-টা খুব সাধারণ দেখতে হলেও যেভাবে সেটাকে বন্ধ করা ছিল তাতে অনেক যত্নের ছাপ। চারদিক পুরু টেপ দিয়ে মোড়ানো। ছুরি দিয়ে বাক্সটার একদিক কেটে খুলে ফেলল পেদ্রো। ভেতরে বাবল র‍্যাপের মধ্যে রাখা আছে কিছু একটা। খুব সাবধানে এবারে খোলা হল বাবল র‍্যাপের পরত। আর সেটা খুলতেই দৃশ্যমান হল এত আদর দিয়ে রাখা বস্তুটা। একটা ছোট্ট মার্বেল পাথরের টুকরো।

লেখক- অনির্বাণ ঘোষ
#AnariMinds #ThinkRoastEat

বহুরূপী

এই রাস্তা দিয়েই টাউন সেন্টার যাওয়া যায়। আকাশের দিকে তাকিয়ে নিক আঁতকে ওঠে। শয়ে শয়ে ফাইটার প্লেনে ছেয়ে গেছে আকাশ। আর কিছুক্ষণ বাদেই বম্বিং শুরু হবে নির্ঘাত। এরিন ছুটে চলেছে স্যান্টা কে ধাওয়া করতে করতে। বোকা মেয়েটাকে কে বোঝাবে আজ।

লেখক ~ অরিজিৎ গাঙ্গুলি
#AnariMinds #ThinkRoastEat

হায়রোগ্লিফের দেশে- ৫ গ্রেট পিরামিড!!

হ্যাঁ, বললাম না, প্রাচীন পৃথিবীর সাতটা আশ্চর্যের একটা হল গ্রেট পিরামিড। এত পুরনো একটা জিনিস আজও মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে। আরবীতে একটা প্রবাদ আছে জানো? মানুষ সময়কে ভয় পায়, আর সময় ভয় পায় পিরামিডকে। এখন একে যে অবস্থায় দেখ তার চেয়ে অনেক সুন্দর ছিল কয়েকহাজার বছর আগেও। গোটা পিরামিডটার গা মোড়ানো ছিল ঝকঝকে সাদা পাথর দিয়ে।

লেখক- অনির্বাণ ঘোষ
#AnariMinds #ThinkRoastEat

রাজায় রাজায় যুদ্ধ – ১ – মৃত্যুর একদিন আগে

স্যান্ডি এসে শুয়ে পড়ল আবার দৈত্যের পাশে। ফিউজ থেকে কিছুই বোঝা যাচ্ছে না। অদ্ভুত এক অনুভূতি আসছে মনে। যতই মন শক্ত থাকুক না কেন, খালি মনে হচ্ছে একটু বাদেই প্রচন্ড বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে উঠবে চারিদিক, দুজনের দেহ ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে ছড়িয়ে পড়বে চারিদিকে, কালকের সকাল আর দেখা হবে না।

লেখক ~ অরিজিৎ গাঙ্গুলি
#AnariMinds #ThinkRoastEat

হিস্ট্রির মিস্ট্রি-১৫ ভালোবাসার মৃত্যুরা

সব হারিয়েছে ওফেলিয়া, আজ ও বীতশোক। পরিস্থিতির আঘাতে ওর মস্তিষ্কেও জট পাকিয়েছে যে। সেখানে ভূত,ভবিষ্যত, বর্তমান… কিচ্ছু নেই। ওফেলিয়া উন্মাদ হয়ে গেছে। ওর আত্মাটা আর নেই যেন ওর শরীরে। তাই ছোট নদীটায় যখন ও আজকে পরে গেল তখন আর উঠে আসার কোন চেষ্টা ছিল না। চারপাশে নুয়ে থাকা রঙিন ফুলগুলোও টানেনি আজ ওকে।