অন্তিম যাত্রা

সিনেমা ভালো লাগবে না মন্দ লাগবে সেটা যেমন ছবির ধারাপ্রবাহের ওপর নির্ভর করে, ঠিক সেরম ভাবেই নির্ভর করে সেই ছবির থেকে আপনার নিজের কি এক্সপেক্টেশান। বুঝিয়ে বলি, আপনি সিনেমা হলে স্টুডেন্ট অফ দ্যা ইয়ার দেখতে গেলেন এই আশা নিয়ে যে এখানে একটা ছাত্র প্রচুর পড়াশোনা করে ব্ল্যাক হোল নিয়ে একটা দারুন থিসিস দিয়ে, প্রচুর প্রাইজ ফ্রাইজ পেয়ে একদম একাকার করে দেবে; তারপর গিয়ে দেখলেন অমুক অভিনেতা আর অভিনেত্রী বুট ডুবে যাওয়া বরফের মধ্যে টি শার্ট আর চিকনের কুর্তি পরে নাচছে। আপনি আশাহত হবেনই। কিন্তু যদি উল্টোটা হয় তাহলে একটা শক লাগার মতো ব্যাপার হবে। সব শেষে কি দেখলাম না দেখলাম এসব গুলিয়ে গিয়ে নিজেকে ভালোটা বোঝাতে চেষ্টা করবেন, আপনই জিতবেন।

সরষেক্ষেত ও খৈনি

যাই হোক রডে পোজিশন লে লিয়া। তরুণ কুমারের মত বডি আর উত্তম কুমারের অ্যাটিচ্যুড নিয়ে পকেটে হাত বুলালাম। বিড়ির তাড়াটা মিসিং। ধ্যার্বাল! ঝনঝন্ করে হৃদয়ের গুঁড়ো ঝরে পড়তে লাগল। উড়ে যেতে লাগল বাইরে রানিং গাছপালা, ল্যাম্পপোস্টের গায়ে।

লেখা ~ দেবপ্রিয় মুখার্জি

লাভ ইউ রোহিতা

কিন্তু সবথেকে যা পারে , তা হলো নাকে নথ লাগিয়ে সিঁদুর পরে সম্বন্ধ করতে। যা চিংড়ি পারেনা পোকা বলে। তাত্ত্বিকের তত্ব কিন্তু বিয়ের আয়োজনের তত্বে চুপ করে থাকে। ডালায় সে সেজে ওঠে সুন্দরী হয়ে। আর রাজ্ করে লক্ষ লক্ষ মানুষের মনে।

ষোলো আনা চাই তোকে

কথার তুফান টেবিল কাপে, ছলকে পড়ুক গরম চা।
যন্ত্রণাতে চুমুক লাগাই! শোকের আগুন তফাৎ যা।
#কবিতার_খাতা #আনারিমাইন্ডস

প্রেমপত্র

মিথ্যে বলব না, নিদারুণ হিংসে হয়েছিল শানের উপর। কিন্তু কি করা যাবে তুমি যে আমার অধরা মাধুরী দুলতে চলেছ অন্যের বাগানে!

ঝগড়া

ওর নিশ্বাসের ফোঁস ফোঁস শব্দ আমার কানে বাজে। সব সময় ওর কথা মনে পড়ে। ওর চোখ দুটো, মুখটা … আমাকে ছাড়া কিছুই যেন জানেনা বেচারা…

শীতের সকাল

মাঝে মাঝে ভুলে যাই যে আমি আর কচি খোকা নই। ভূমিকা উপসংহারের বেড়াজালে শীতের সকাল, গ্রীষ্মের দুপুর বা বর্ষনমুখর রাত্রিকে আর বেঁধে রাখতে পারি না। বারো নম্বরের রচনায় শূণ্য পেলেও খুশি, কিন্তু শীতকালকে নতুন ভাবে চিনেছি অনেক বছর ধরে, তাই আজ একটা ট্রাই নিচ্ছি ছোটবেলার সেই রচনাটাকে একটু “আনাড়ি” স্টাইলে লিখতে।

লেখক ~ অরিজিৎ গাঙ্গুলি
#AnariMinds